• মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৮:২৫ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
Logo
                               
শিরোনাম:
তালায় ধর্ষনের অভিযোগে গ্রেপ্তার -১ সাংবাদিক কামরুল হাসানের পুত্রের মাধ্যমিকে জিপিএ-৫ অর্জন সাতক্ষীরায় আনসার-ভিডিপির সদস্যদের শীতবস্ত্র বিতরণ সাতক্ষীরায় ছাত্রীদের যৌন হয়রানির মামলায় প্রধান শিক্ষক ও দপ্তরী কারাগারে কলারোয়ায় আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভাসহ তিনটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে কলারোয়ায় সাংবাদিক পুত্র সোহেলের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ দাখিলে আয়েনউদ্দীন মাদ্রাসায় অভাবনীয় সাফল্য কলারোয়ায় শ্রীশ্রী তারকব্রহ্ম মহানাম সংকীর্ত্তনের উদ্বোধন করলেন সচিব ডাঃ দিলীপ কুমার ঘোষ এসএসসি’তে ৭ম বারের মতো জেলার শ্রেষ্ঠ নবারুন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় শ্যামনগরে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

আওয়ামী লীগকে সবাই নির্যাতন করেছে: শেখ হাসিনা

রিপোর্টারঃ / ২৭ বার ভিজিট
আপডেটঃ সোমবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২২

অনলাইন ডেস্ক:  দলের দুঃসময়ের কাণ্ডারী নির্যাতনের শিকার প্রয়াত নেতাদের স্মরণ করতে গিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ তো সবার আগে নির্যাতিত। জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া- সবাই নির্যাতন করেছে।

রোববার জাতীয় সংসদের ২০তম অধিবেশনে চলমান সংসদের উপনেতা ও আওয়ামী লীগে প্রবীণ নেত্রী প্রয়াত সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এবং সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য শেখ এ্যানী রহমানের ওপর আনা শোক প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে শেখ হাসিনা একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাজেদা চৌধুরী আওয়ামী লীগের জন্য যে অবদান রেখে গেছেন তা ভোলার নয়। চরম দুর্দিনে আওয়ামী লীগের হাল ধরা এবং এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজটি তিনি করেছেন। বারবার এই আওয়ামী লীগের ওপর আঘাত এসেছে, পাকিস্তানের সময় মুক্তিযুদ্ধের সময় আওয়ামী লীগের ওপরই আঘাত এসেছে। সাজেদা চৌধুরী নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করেছেন। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে ক্যাম্পের নেতৃত্বে ছিলেন যেমন, তেমন মুক্তিযোদ্ধাদেরও সংগঠিত করেছেন, খোঁজখবর নিয়েছেন। স্বাধীনতার সংগ্রামে যেমন তার অবদান রয়েছে। আমাদের জাতীয় জীবনেও অবদান রয়েছে তার।

তিনি বলেন, ১৫ আগস্টের পর তো আমাদের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর ওপর নির্যাতন নেমে আসে। সাজেদ চৌধুরীও এর শিকার। জিয়াউর রহমান তাকে গ্রেফতার করে। তার অপারেশন হয়েছিল, গায়ে জ্বর ছিল- এ অবস্থায় জিয়াউর রহমান তাকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠায়। মতিয়া চৌধুরীকেও গ্রেফতার করে। তিনিও অসুস্থ ছিলেন। তাদের ডিভিশনও দেয়নি। সাধারণ কয়েদির মতো জেলে ফেলে রাখে। এ দেশের প্রত্যেকটি আন্দোলন-সংগ্রামে সাজেদা চৌধুরী সব সময় সামনে থাকতেন। জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর তিনি দিলি­ গিয়েছিলেন আমার সঙ্গে দেখা করতে। আমরা তাকে ফুপু বলে ডাকতাম।

শেখ হাসিনা বলেন, জিয়াউর রহমান আইন করেছিল পার্টির রেজিস্ট্রেশনে কারও নাম দেওয়া যাবে না। কিন্তু এ ব্যাপারে সাজেদা চৌধুরী অটল ছিলেন। তিনি বলেছিলেন বঙ্গবন্ধু ছাড়া পার্টি হয় না। আমাদের দলের মধ্যেও কারও কারও দ্বিধাদ্বন্দ্ব ছিল। তিনি কিন্তু এ ব্যাপারে অটল ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে চেয়েছিল জিয়াউর রহমান, তাই এই আইন করেছিল।

তিনি বলেন, সাজেদা চৌধুরী বা মতিয়া চৌধুরীকে গ্রেফতার করে জিয়াউর রহমান ডিভিশন না দিয়ে ফেলে রেখেছে, ঠিক খালেদা জিয়া একই কাজ করেছিল। রওশন এরশাদ, তিনি তো মাস্টার্স ডিগ্রি পাশ। পেনাল কোডে আছে মাস্টার ডিগ্রি পাশ হলে ডিভিশন দিতে হয়। সাধারণ কয়েদিদের সঙ্গে তাকে ফেলে রেখেছিল। একদম সাধারণ কয়েদিদের সঙ্গে। আমরা তো তাও খালেদা জিয়াকে অসুস্থ বলে নির্বাহী আদেশে তার শাস্তি প্রাপ্তি স্থগিত রেখে বাসায় থাকার সুযোগ করে দিয়েছি। একটা মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে এটা করা একজন বয়োবৃদ্ধ মানুষ। খালেদা জিয়া কিন্তু সেটা করেনি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, বিমানবাহিনীর প্রধান জামাল উদ্দিনকে গ্রেফতার করে তার নামে একটা ঘড়ি চুরির মামলা দিয়ে কোনো ডিভিশন না দিয়ে মাত্র ২টি কম্বল দিয়ে তাকে জেলখানায় পাঠিয়েছিল। এভাবে মানুষকে তারা অত্যাচার করেছে, নির্যাতন করেছে। জাতীয় পার্টি বোধহয় সেই নির্যাতনের কথা ভুলেই গেছে এখন। ভুলে গেছে অনেকে সেটা। আওয়ামী লীগ তো সবার আগে নির্যাতিত। জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া- সবাই নির্যাতন করেছে।

add 1


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (রাত ৮:২৫)
  • ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)