• মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৭:৫৩ অপরাহ্ন
  • Bengali Bengali English English
Logo
                               
শিরোনাম:
তালায় ধর্ষনের অভিযোগে গ্রেপ্তার -১ সাংবাদিক কামরুল হাসানের পুত্রের মাধ্যমিকে জিপিএ-৫ অর্জন সাতক্ষীরায় আনসার-ভিডিপির সদস্যদের শীতবস্ত্র বিতরণ সাতক্ষীরায় ছাত্রীদের যৌন হয়রানির মামলায় প্রধান শিক্ষক ও দপ্তরী কারাগারে কলারোয়ায় আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভাসহ তিনটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে কলারোয়ায় সাংবাদিক পুত্র সোহেলের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ দাখিলে আয়েনউদ্দীন মাদ্রাসায় অভাবনীয় সাফল্য কলারোয়ায় শ্রীশ্রী তারকব্রহ্ম মহানাম সংকীর্ত্তনের উদ্বোধন করলেন সচিব ডাঃ দিলীপ কুমার ঘোষ এসএসসি’তে ৭ম বারের মতো জেলার শ্রেষ্ঠ নবারুন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় শ্যামনগরে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

খুলনার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

রিপোর্টারঃ / ২০ বার ভিজিট
আপডেটঃ মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২২

অনলাইন ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ এর প্রভাবে গত রাত থেকে টানা বৃষ্টি ও জলোচ্ছ্বাসের প্রভাবে খুলনা শহরের নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। দুপুরের পর থেকে বিদ্যুৎ নেই বেশির ভাগ এলাকায়। অপরদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ মোকাবিলায় খুলনা জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদারের সভাপতিত্বে তাঁর সম্মেলনকক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক বলেন, খুলনার উপকূলীয় এলাকার মানুষকে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং সম্পর্কে সচেতন করতে মাইকের মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। যত দ্রুত সম্ভব সবাইকে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসতে হবে। দুর্যোগকালে টেলিফোন, বিদ্যুৎ ও সড়ক যোগাযোগ নিরবচ্ছিন্ন রাখতে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোকে প্রস্তুত থাকতে হবে। খুলনার কয়রা, দাকোপ ও পাইকগাছা উপজেলার প্রতি অধিক নজর দেওয়া প্রয়োজন।

সভায় জানানো হয়, সিত্রাং মোকাবিলায় খুলনা জেলার উপকূলীয় এলাকার ৫৪৮টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। যার মধ্যে দাকোপে ১১৮টি, বটিয়াঘাটায় ২৩টি, ডুমুরিয়ায় ২৫টি, কয়রায় ১১৮টি, পাইকগাছায় ১০৮টি, তেরখাদায় ২২টি, রূপসায় ৩৮টি, ফুলতলায় ২৫টি ও দিঘলিয়া উপজেলায় ৭১টি আশ্রয় কেন্দ্র রয়েছে। যেকোনো দুর্যোগ পরিস্থিতিতে কেন্দ্রগুলোয় মানুষ আশ্রয় নিতে পারবে। জেলার  প্রতিটি উপজেলায় ৫টি এবং প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে মোট ১১৬টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। জেলা-উপজেলা পর্যায়ের সরকারি হাসপাতালগুলোর জরুরি বিভাগে সার্বক্ষণিক সেবা প্রদানের জন্য ডাক্তার, সেবিকা, ওষুধপত্র ও অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

দুর্যোগকালে সাধারণ মানুষকে সহযোগিতা করার জন্য পাঁচ হাজার ২৮০ জন সিপিপি স্বেচ্ছাসেবক সজাগ অবস্থায় আছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে পাওয়া স্যালাইন ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যেগুলোর প্রতিটির মাধ্যমে চার হাজার মানুষকে বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ করা সম্ভব। বাংলাদেশ বেতারের খুলনা কেন্দ্র জনসাধারণের উদ্দেশে নিয়মিত বিরতিতে আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রচার করছে। দুর্যোগকালীন যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় নৌবাহিনী, পুলিশ, আনসার, ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স ও রেড ক্রিসেন্টের সদস্যরা প্রস্তুত আছেন।

এ ছাড়া দুর্যোগকালীন পরিস্থিতি মোকাবিলায় খুলনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে নিয়ন্ত্রণকক্ষ খোলা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণকক্ষের ফোন নম্বর ০২৪-৭৭৭২৬৫৯২ ও মোবাইন নম্বর-০১৩২২৮৭৫৫৫০।

সভায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাববুব হাসান, সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. সাদিকুর রহমান খানসহ সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন

add 1


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার (সন্ধ্যা ৭:৫৩)
  • ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)