ঢাকা শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

পানি খেতে যাওয়ায় ছাত্রীর হাত ভেঙে দিল শিক্ষক

সেন্ট্রাল ডেস্ক
০৩ আগস্ট ২০২২ ২৩:০৬
আপডেট: ১২ আগস্ট ২০২২ ১৪:১৬
পানি খেতে যাওয়ায় ছাত্রীর হাত ভেঙে দিল শিক্ষক

শ্যামনগর প্রতিনিধি: শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের ১০৩ নম্বর সেন্ট্রাল আবাদ চন্ডিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী আনিসা আক্তার (১১)কে বেধড়ক পিটিয়ে বাম হাতের কনুই ভেঙে দিয়েছে শিক্ষক। আনিসা আক্তারে পিতা আবুল সরদার প্রতিবেদককে জানান, সোমবার ১লা আগষ্ট আমার মেয়ে প্রতিদিনের মতো সকালে স্কুলে যায়। ঐ দিন দুপুরে প্রচন্ড পানির পিপাসা লাগার কারণে তারা কয়েকজন লাইব্রেরীতে গিয়েছিল পানি খেতে। এসময় শিক্ষক শহিদুল ইসলাম দলবেঁধে আসা ভালোভাবে নেন নি। একসঙ্গে ছয় সাতজন লাইব্রেরীতে প্রবেশ করায় বেপরোয়া মারপিট শুরু করেন। শিক্ষক এসএম শহিদুল ইসলাম বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের আবাদ চন্ডিপুর বনবিবি তলার গ্রামের মৃত নুরবান সরদারের পুত্র। মেয়েটি বর্তমানে শ্যামনগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। অভিভাবকরা জানান, প্রত্যেক অভিভাবক তার প্রাণপ্রিয় সন্তানদের শিক্ষা লাভের জন্য বিদ্যালয়ে পাঠান। তারা আশা করেন পিতা মাতার মত শিক্ষকরা তাদের আদর যতেœ আগলে রাখবেন। আগেকার দিনের গতানুগতিক শিক্ষা ব্যবস্থার ধরন এখন পাল্টে গিয়েছে। লাঠি সোঠার ব্যবহার অনেক আগেই বদলে আনন্দ দানের মধ্যে শিক্ষা প্রদান এই পদ্ধতি চলমান। প্রতিনিয়ত শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এ বিষয়ে অবগত করা হচ্ছে। তারপরও কিছু নামধারী শিক্ষক আইন-কানুনের তোয়াক্কা করছেন না। এবিষয়ে শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, সোমবার সকালে আমাদের স্কুলে নতুন ভবনে আনিসা আক্তারসহ বাচ্চারা খেলা করছিল, তাদেরকে বার বার ক্লাসে আসার কথা বললেও তারা আসেনি। যার কারণে আমি নিজে যে প্রতিটি বাচ্চাকে খেজুরের লাঠি দ্বারা দুইটা করে বাড়ি দিয়ে ক্লাসে নিয়ে আসি। আমি শারীরিকভাবে অসুস্থ আমার ডান হাতে আঘাত জনিত কারণে গলায় ঝুলানো আছে। এ ধরনের নানান কথা বলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

 

 

সর্বশেষ সবখবর