ঢাকা রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮

শিক্ষার আধুনিকায়নে আসছে আমূল পরিবর্তন

সেন্ট্রাল ডেস্ক
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৭:১৩
আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৭:১০
শিক্ষার আধুনিকায়নে আসছে আমূল পরিবর্তন সোমবার জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার খসড়া আলোচনায় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ছবি: সংগৃহীত

প্রাক্-প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত পাল্টে যাচ্ছে শিক্ষাক্রম। বিষয় ও পরীক্ষা কমিয়ে বইয়ে আনা হচ্ছে পরিবর্তন। এর মাধ্যমে আমূল পরিবর্তন আসছে শিক্ষাক্রমে।
সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার খসড়া নিয়ে এক আলোচনায় এ সিদ্ধান্ত হয়। ওই আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী গনভবন থেকে এবং শিক্ষা প্রশাসনের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীসহ কর্মকর্তারা সচিবালয় থেকে অনলাইনে যোগ দেন। এসময় নতুন শিক্ষাক্রমের বিষয় প্রধানমন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা একান্তভাবে অপরিহার্য। বিজ্ঞান-প্রযুক্তিসহ বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে শিক্ষা ব্যবস্থার আরও আধুনিকায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন সরকার প্রধান। আমরা মনে করি‑ বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি এগিয়ে যাচ্ছে, আমাদেরকে এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে
বৈঠক শেষে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, ২০২৩ সাল থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হবে। বই ও পরীক্ষার ধরণ পাল্টাবে। এসএসসির আগে কোনো পাবলিক পরীক্ষা হবে না। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার নাম ও ধরনে আসতে পারে পরিবর্তন। গ্রেডিং সিস্টেমে রদবদল আসবে। নবম-দশম শ্রেণি পর্যন্ত বিজ্ঞান-মানবিক-বাণিজ্য বিভাজন থাকছে না।
তিনি বলেন, তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত থাকছে না কোনো বার্ষিক পরীক্ষা। বই ও শিক্ষা কার্যক্রম পাল্টে যাবে। প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলে তা কার্যকর হবে। ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোকেও তা মানতে হবে। ক্লাস মূল্যায়নের ভিত্তিতে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল দেয়া হতে পারে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, এ নিয়ে আমাদের আরও পরিকল্পনা রয়েছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা থাকবে না। এইচএসসির ফল হবে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ফল মিলিয়ে।
প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষা ব্যবস্থায় বড় ধরনের সংস্কার আসছে। পঞ্চম শ্রেণি সাময়িকী পিইসি, অষ্টম শ্রেণি সাময়িকী জেএসসি নামে পাবলিক পরীক্ষা বাতিল করার সিদ্ধান্ত এসেছে। পাশাপাশি নবম ও দশম শ্রেণিতে মানবিক, বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা নামে বিভাগ তুলে দেয়া হচ্ছে। একটি সমন্বিত পাঠ্যক্রম থাকবে এই পর্যায়ে।
তিনি বলেন, ১০ শ্রেণি পর্যন্ত ১০টি বিষয় ঠিক করা হয়েছে। সেগুলোই সবাই পড়বে। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে গিয়ে ঐচ্ছিক বিষয়গুলো পড়বে শিক্ষার্থীরা। অর্থাৎ বিজ্ঞান, মানবিক, বাণিজ্যে বিভাজন হবে উচ্চমাধ্যমিক থেকে। এখন থেকে তিনটি পাবলিক পরীক্ষা হবে বলেও জানান মন্ত্রী। দশম, একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণি শেষে পরীক্ষায় বসবে শিক্ষার্থীরা। দশম শ্রেণি সমাপনী পরীক্ষা এসএসসি আর একাদশ ও দ্বাদশ সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল মিলিয়ে প্রকাশ করা হবে এইচএসসির ফল। মন্ত্রী জানান, নতুন শিক্ষাক্রমের পাইলটিং শুরু হবে আগামী বছর। এক্ষেত্রে প্রাথমিকে প্রথম শ্রেণি আর মাধ্যমিকে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পাইলটিং শুরু হবে। আর প্রয়োগ শুরু হচ্ছে ২০২৩ সালে।

সর্বশেষ সবখবর