ঢাকা শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮

ন্যামভুক্ত দেশে সম্পদের গতিশীলতা চায় বাংলাদেশ

সেন্ট্রাল ডেস্ক
১২ অক্টোবর ২০২১ ১৩:১৬
আপডেট: ২১ অক্টোবর ২০২১ ২২:২৮
ন্যামভুক্ত দেশে সম্পদের গতিশীলতা চায় বাংলাদেশ ছবি: সংগৃহিত

ন্যাশনাল ডেস্ক: ন্যাম সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ন্যামভুক্ত দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন, দারিদ্র্য কমানো ও এসডিজির প্রধান লক্ষ্য অর্জনে আয়ের আরও ন্যায়সংগত বণ্টনে সম্পদের গতিশীলতার ওপর কম বিধিনিষেধ আরোপ করা অপরিহার্য। করোনাভাইরাস মহামারি-পরবর্তী সময়ে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের (ন্যাম) সদস্য দেশগুলোর মধ্যে মূলধন, প্রযুক্তি ও শ্রমের অবাধ চলাচল চেয়েছে বাংলাদেশ। ৬০তম ন্যাম সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের উদ্বৃতি দিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে মঙ্গলবার সকালে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। ১৯৬১ সালে সাবেক যুগোস্লাভিয়ার রাজধানী বেলগ্রেডে জন্ম হয় ন্যামের। সেই বেলগ্রেডেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৬০তম ন্যাম সম্মেলন। ন্যাম সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ন্যামভুক্ত দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন, দারিদ্র্য কমানো ও এসডিজির প্রধান লক্ষ্য অর্জনে আয়ের আরও ন্যায়সংগত বণ্টনে সম্পদের গতিশীলতার ওপর কম বিধিনিষেধ আরোপ করা অপরিহার্য। কোভিড মহামারি-পরবর্তী অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সাউথ সাউথ কো-অপারেশন গড়ে তুলতে দক্ষিণের দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান মোমেন। তিনি বলেন, ‘মহামারি-পরবর্তী টেকসই পুনরুদ্ধারে একসঙ্গে কাজ করার জন্য বৈশ্বিক দক্ষিণের পররাষ্ট্র, অর্থ ও উন্নয়ন মন্ত্রীদের একটি ফোরাম প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দক্ষিণ-দক্ষিণ এবং ত্রিভুজীয় সহযোগিতা জোরদার করতে হবে। ‘ফোরামটি দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলোর সম্ভাব্যতা অন্বেষণ এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য অভিজ্ঞতা, দক্ষতা, প্রযুক্তি ও সম্পদ ভাগ করে নেয়ার একটি প্ল্যাটফর্ম সরবরাহ করবে।’ সাম্য, মানবতা ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার জন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামের কথা তুলে ধরে ন্যামের প্রতিষ্ঠিত নীতির প্রতি বাংলাদেশের দৃঢ় প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করেন মোমেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের শান্তিকেন্দ্রিক পররাষ্ট্রনীতি জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের চেতনার প্রতিধ্বনি দেয়।’ ন্যামের প্রাসঙ্গিকতার ওপর জোর দিয়ে জলবায়ু পরিবর্তন, সন্ত্রাসবাদ, সহিংসতা ইত্যাদি উদীয়মান চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তুলে ধরেন মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের দীর্ঘ নির্যাতনের কথা। রোহিঙ্গা ইস্যুতে জরুরি পদক্ষেপ নিতে ন্যামের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা প্রাপ্তিতে বৈশ্বিক বৈষম্য নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ভ্যাকসিন উন্নয়নে আমাদের অসাধারণ অগ্রগতি হলেও ভ্যাকসিন জাতীয়করণ এবং ভ্যাকসিন বণ্টনে রাজনীতির কারণে মারাত্মক ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে আমরা ব্যর্থ হয়েছি।’ অবিলম্বে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনকে বৈশ্বিক ও জনসাধারণের সম্পদ হিসেবে বিবেচনা করে সবার জন্য এর প্রাপ্যতা নিশ্চিতের আহ্বান জানান তিনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বেলগ্রেডে জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের ৬০তম বার্ষিকী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এতে নেপাল, কুয়েত, সৌদি আরব, ভারত, ইরাক, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, জিম্বাবুয়ে, উগান্ডা, গেবন, গাম্বিয়া, সুদান, হাইতি, অ্যাঙ্গোলা, ফিলিস্তিনসহ ৭০টির বেশি দেশের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশ নিয়েছেন। জাতিসংঘের মহাসচিব এবং জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতিও প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।