ঢাকা শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

শ্যামনগরে হোটেল রেস্তোরাঁ ও মিষ্টির দোকানে পচাবাসি খাবার

সেন্ট্রাল ডেস্ক
০১ আগস্ট ২০২২ ২৩:৫১
আপডেট: ১০ আগস্ট ২০২২ ১২:২০
শ্যামনগরে হোটেল রেস্তোরাঁ ও মিষ্টির দোকানে পচাবাসি খাবার

এসএম মিজানুর রহমান, শ্যামনগর: শ্যামনগর উপজেলার হাট বাজারগুলোতে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে ওঠা হোটেল রেস্তোরাঁগুলোতে বিক্রি হচ্ছে পচাবাসি ও ভেজাল খাদ্যদ্রব্য। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে, রান্না করা মাছ, মাংস, বিভিন্ন তরকারি, ডাল, সিংড়া, বিভিন্ন ধরনের চপ, পেয়াজু। মিষ্টির মধ্যে রসগোল্লা, জিলাপী, চমচম, দই ইত্যাদি। প্রতিনিয়ত এসব অসাধু হোটেল মালিক ও বাজারের দোকানের মালিকদের বিরুদ্ধে বহুদিনের ব্যবহৃত পুরাতন ভাজা তেল-মসলার মধ্যে নতুন দিনের মাছ ও মাংস রান্না করে থাকে বলে অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ভেড়ার মাংস, বকরির মাংস খাসির মাংস বলে বিক্রি করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, হোটেল রেস্তোরা ও ভাজার দোকানে এক তেলে বিভিন্ন খাবার ভেজে বিক্রি করছে। পোল্ট্রি বা বয়লার মাংস বিক্রি করা হচ্ছে দেশী মুরগীর মাংস বলে এবং গ্লাস কাপ বা অপেক্ষাকৃত কম মূল্যের মাছ ভেটকি, রুই, কাতলা বলে বিক্রি করারও অভিযোগ উঠছে। উপজেলার বিভিন্ন হোটেল রেস্তোরাঁ ও ভাজার দোকানগুলোকে পচাবাসি খাবার মুক্ত করণের জন্য অবিলম্বে তদারকির ব্যবস্থা অপরিহার্য বলে মনে করছেন সচেতন মহল। সম্প্রতি স্থানীয়ভাবে সৃষ্ট বেকারীগুলোর বিভিন্ন ধরনের কেক, পাউরুটি, বিস্কুট, ক্রিম রোল, তেলের পিঠা, লাড্ডুসহ বিভিন্ন ধরনের চমকপ্রদ নামের খাদ্যের মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কিছু কিছু প্যাকেটের স্টিকারে মেয়াদের তারিখ লেখা থাকছে অথচ এমনও দেখা যাচ্ছে যে, উৎপাদনের তারিখ হিসেবে লেখা হচ্ছে যে খাবার তা পূর্বেই বাজারে বিক্রি হচ্ছে। অবিলম্বে এসব বেকারী ও ভেজাল খাদ্যের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী ও সচেতন মহল। শ্যামনগর উপজেলা সেনেটারী ইন্সপেক্টর বিকাশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, খুব শিঘ্রই এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

সর্বশেষ সবখবর