ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ৯ আশ্বিন ১৪২৯

ফসলী জমিতে মৎস্যঘের করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

কান্ট্রি ডেস্ক
১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২১:৩৮
আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৩:৪৮
ফসলী জমিতে মৎস্যঘের করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার: ফসলী জমিতে ভেড়িবাঁধ দিয়ে জোরপূর্বক মৎস্যঘের করার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) বিকালে কলারোয়ার জয়নগর ইউনিয়নের গাজনা প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন চেয়ারম্যান বিশাখা তপন সাহা, ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি মাষ্টার আজিজুর রহমান প্রমুখ। বক্তারা বলেন, ক্ষেত্রপাড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির আওতায় কামকোলার বিল ১ কোটি ৩৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে খাল খনন, সুইচ গেট নির্মাণ ও ভেড়িবাঁধ সংস্কার করা হয়েছে। কামকোলার বিলে তারপর থেকে বিলে বছরে ৩টি করে ফসল হয়। সাবেক মেম্বার জয়দেব সাহাসহ এলাকার কিছু লোকজন নিয়ে ফসলী জমিতে ভেড়িবাঁধ দিয়ে জোরপূর্বক মৎস্যঘের করতে চাচ্ছে। এরই প্রতিবাদে এ মানববন্ধন ও সমাবেশ। চাষী মশিয়ার ও খালেকসহ অনেকেই বলেন, আমরা ঘের চাই না। আমরা জমিতে ফসল করতে চাই। ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি মাষ্টার আমিনুর রহমান বলেন, এ বিষয়টি এমপি মহোদয় জানেন এবং চাষীদের সমর্থন করেছেন। আজিজুর রহমান বলেন, জয়নগর ইউনিয়ন আ.লীগের পক্ষ থেকে চাষীদের পক্ষে সহযোগিতা থাকবে এবং ঘের যেন না হয়, চাষীরা যেন ফসল ফলাতে পারে সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। চেয়ারম্যান বিশাখা তপন সাহা বলেন, গত ২২ মে ৮৮ জন চাষীদের দাগ খতিয়ান স্বাক্ষরিত একটি দরখাস্ত আমার পরিষদে দিয়েছেন। আমি বিষয়টি জানতে জয়দেব এর কাছে গ্রাম পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। তার জবাবে তিনি বলেন, সে তার জায়গায় ঘের করেছে। চেয়ারম্যান বলেন, আমার প্রশ্ন একটাই, সে যদি তার জায়গায় ঘের করে তাহলে ১০০ বিঘা জমি কি সব তার? চেয়ারম্যান বলেন, আমি বিষয়টি ইউএনও ও ওসি’কে জানাই। ইউএনও এবং ওসি সরেজমিনে আসছিলেন, আমরা সাথে ছিলাম। বিষয়টি ইউএনও উপজেলা কৃষি অফিসার ও মৎস অফিসারকে দায়িত্ব দিয়েছেন। দায়িত্বটি এখনও চলমান আছে। এই কামকোলা বিলে যেন ঘের না হয় সেই জন্য চাষীদের সাথে আমি একত্ব ঘোষণা করলাম।