ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ৯ আশ্বিন ১৪২৯

অনলাইন গেম আসক্ত কিশোরদের পরিবেশ আন্দোলনে সম্পৃক্তকরণ

সেন্ট্রাল ডেস্ক
১৮ আগস্ট ২০২২ ০০:২৬
আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৩:৪৮
অনলাইন গেম আসক্ত কিশোরদের পরিবেশ আন্দোলনে সম্পৃক্তকরণ

এসএম মিজানুর রহমান, শ্যামনগর: শ্যামনগরে ভিডিও গেমের প্রতি শিশু-কিশোরদের আগ্রহ নতুন কিছু নয়। বর্তমানে এর প্রভাব খুব বেশি দেখা যাচ্ছে। তবে এ আসক্তিকে সম্প্রতি ‘মানসিক রোগের’ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ শিশুদের অনলাইন ভিডিও গেম নিয়ে যথেষ্ট সচেতন। অনেক দেশই শিশুদের ভিডিও গেমে ওপর মনিটরিং করছে। যদিও আমাদের দেশে এখন পর্যন্ত তেমন কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। শিশুদের অতিরিক্ত ভিডিও গেম আসক্তি নিয়ে দেশের বিশেষজ্ঞরাও অনেকদিন থেকে চিন্তিত। অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, ভিডিও গেম শিশুদের সামাজিকীকরণে বাধা দেয় এবং এর ফলে মেধা বিকাশে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এ ছাড়া বর্তমানে অনেক শিশুর আচরণেও পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে। ভিডিও গেম খেলতে বাধা দিলে অনেক শিশু চিৎকার চেঁচামেচি করে, উচ্চস্বরে কথা বলে, রাগ দেখানো এবং অন্যান্য কাজে খুব বেশি মনোযোগ দিতে চায় না। গেম খেলতে না দেওয়া কিংবা এমবি কেনার টাকা না দেওয়ায় আত্মহত্যার মতো ঘটনাও ঘটছে দেশে। উপকূূলীয় সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলায় সাম্প্রতি কিশোররা অনলাইন গেমে বেশি আসক্ত হয়ে পড়েছে, যার ফলে অনেকে এই ভয়ানক গেমের কবলে পড়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ত্যাগ করেছেন, মাদকআসক্ত হচ্ছেন, সমাজের গতানুগতিক শিক্ষা থেকে বিচ্যুতি হচ্ছেন। অন্যদিকে সাতক্ষীরা জেলা জলবায়ু পরিবর্তন জনিত কারনে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিশ্বের উন্নত দেশগুলো অনেকটা এসকল সমস্যার প্রধান উৎস হয়ে দাড়িয়েছে। সুইডিশ জলবায়ু নেত্রী গ্রেটা থুনবার্গ এর ফ্রাইডে ফর ফিউচার এর আন্দোলনে উদ্ভুদ্ধ হয়ে সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার জলবায়ু সুবিচারের দাবিতে শরুব ইয়ুথ টিম টানা সপ্তম সপ্তাহ হাতে প্লাকার্ড রেখে বিভিন্ন ম্যাসেজ লিখে জানান দিচ্ছে উন্নত বিশ্বের কাছে, যার সম্পূর্ণ কাজে তরুণরা নেতৃত্ব দিচ্ছেন। মঙ্গলবার শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নে শরুব ইয়ুথ টিমের আয়োজনে অনলাইন গেমে আসক্তি ২০ জন কিশোরদের নিয়ে সচেতনতামূলক উঠান বৈঠক এর আয়োজন করে। এসময় শরুব ইয়ুথ টিমের পরিচালক এসএম জান্নাত্লু নাঈম অনলাইন গেমের ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরেন। তাদের মধ্য ৪ জন স্কুল পাঠদান বন্ধ রেখেছিলেন, সে সকল কিশোর দের স্কুলে পাঠদান করার আহবান করেন ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সমস্যাবলী আলোচনা করে তাদের গেম আসক্তি থেকে বের হয়ে জলবায়ু সুবিচার প্রতিষ্টায় পরিবেশ আন্দোলনে সম্পৃক্ত করার শপথ নেন।